অবৈধ স্থাপনায় দোকানপাট বন্ধ করতে অভিযান চালিয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ

  • সকাল নারায়নগঞ্জ

 

সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী ইপিজেড সংলগ্ন সড়ক ও জনপথ বিভাগের সরকারী জমি দখল করে তৈরী অবৈধ স্থাপনায় দোকানপাট বন্ধ করতে অভিযান চালিয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ।

 

সোমবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান এর নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। এ সময় এ সব অবৈধ স্থাপনায় গড়ে উঠা বাস কাউন্টার, খাবারের হোটেলসহ প্রায় ২৫টিরও বেশী দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

 

এদিকে এসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠা দোকান-পাট বাস কাউন্টার, খাবারের হোটেল বন্ধ করে দেয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশকে সাধুবাদ জানিয়েছে ইপিজেডে কর্মরত শ্রমিক ও স্থানীয়রা।

 

তারা জানান. এসব অবৈধ স্থাপনাকে কেন্দ্র করে বাড়ছে ছিনতাই, চুরি’সহ সড়কে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। ফলে চরম ভোগান্তীর শিকার হচ্ছেন আদমজী ইপিজেডের কর্মজীবি পোশাক শ্রমিকরা।

 

এসব অবৈধ স্থাপনায়  গড়ে উঠা দোকান-পাট বাস কাউন্টার, খাবারের হোটেল, কনফেকশনারী, মটর সাইকেল গ্যারেজ, বাস কাউন্টার, অকটেন-পেট্রোল জাতীয় দাহ্য পদার্থ বিক্রয়ের দোকান যাতে আর চালু না হয় এর জন্য থানা প্রশাসনকে স্থায়ী পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানান শ্রমিকরা। কারণ থানার ১শ’ গজের মধ্যেই এসব অবৈধ স্থাপনা।  পুলিশ চাইলে এগুলো আর চালু হবেনা। ন্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যাবে।

 

তারা আরও বলছেন, এরআগে  কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের সঙ্গে আঁতাত করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা এত বছর ধরে অবৈধভাবে সরকারি জমি দখল করে এই দোকান নির্মাণ ও কেনা-বেচা করছে। বিগত ১০ বছর ধরে সরকারি জমি দখল করে স্থানীয়রা ব্যবসা করছেন।

 

নিজেদের ইচ্ছামতো ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিচ্ছেন আবার বিক্রি করছেন। তারা দোকানের জামানত বাবদ ভাড়াটিয়ার কাছ থেকে ২-৩ লাখ করে টাকা নিচ্ছে এবং প্রতি মাসে ৫ হাজার থেকে শুরু করে ১৫ হাজার টাকা করে ভাড়া আদায় করছে।

 

জানা গেছে, চিটাগাংরোড থেকে নারায়ণগঞ্জ চাষাঢ়া যাওয়ার পথে সড়কের পূর্ব পাশে আদমজী ইপিজেড এর দেয়াল ঘেষে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সরকারি জমি দখল করে ২৫টিরও বেশী দোকান নির্মাণ করেছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

 

দখল করা জায়গায় নির্মিত এসব দোকান-ঘর সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রি ও ভাড়া দেওয়া হয়েছে। প্রভাবশালী স্থানীয় এক নেতার প্রভাব খাটিয়ে সরকারি জায়গায় নির্মাণ করা এসব দোকান ভাড়া দিয়েছে মোহম্মদ আলী, ইসমাইল, সেলিম মজুমদার, সেলিম, শাহজালাল, বাবুল, ইব্রাহীম, শহিদুল্লাহ’সহ আরো বেশ কয়েকজন।

 

অবৈধ এসব স্থাপনায় কালাম নামে এক ব্যক্তি একাধিক পরিবহনের বাস কাউন্টার ও রেন্ট-এ কার স্ট্যান্ড গড়ে তুলেছে। যার কারণে আদমজী-চাষাঢ়া সড়কের দুই পাশে নিয়মিত এসব পরিবহনের অবৈধ পার্কিং থাকতে দেখা যায়। ফলে সড়কটিতে নিয়মিত যানজটের শিকার হচ্ছেন পথচারীরা। এছাড়া আশেপাশে বেড়েছে মাদক সেবন, সরবরাহ, চুরি ও ছিনতাই।

 

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সরকারি জায়গা দখলরোধ ও এ জায়গায় অবৈধ স্থাপনা যাতে গড়ে না উঠতে পারে এ বিষয়ে নিয়মিত নজরদারি করবে পুলিশ।