1. sokalnarayanganj@gmail.com : সকাল নারায়ণগঞ্জ : সকাল নারায়ণগঞ্জ
  2. skriaz30@gmail.com : skriaz30 :
  3. : wpcron20dc4723 :
নিখোঁজের ৫ দিন পর প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার - সকাল নারায়ণগঞ্জ
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৩১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ আপডেট
ইসদাইরে অবৈধ ক্যাবল ব্যবসা ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, অফিস সীলগালা রক্তে কনো ভাষায় হন্দিুত্ববাদী সাংস্কৃতকি আগ্রাসন রুখে দতিে হবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চাষাঢ়া জিয়া হলে বই মেলা উদ্বোধন মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে বাংলাদেশ জাহাজী শ্রমিক ফেডারেশন এর শ্রদ্ধা নিবেদন মহান ২১শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেলা মৎস্যজীবী লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন  আজমেরী ওসমানের পক্ষে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন কাজী নূর ইসলাম পরশ ও কাজী ফয়সাল হোসেন জিকু পারভীন ওসমান এর পক্ষে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন কাজী ফয়সাল হোসেন জিকু ও কাজী নূর ইসলাম পরশ  ভাষা আন্দোলনের সকল শহীদের স্মরণে আলোচনা সভা নিতাইগঞ্জে ডিবি পুলিশের অভিযান অস্ত্র কারখানা শনাক্ত, আটক ১ ফতুল্লার পঞ্চবটিস্থ চাঁননগর শিল্প প্রতিষ্ঠান ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে ওয়াজ ও দোয়া মাহফিল

নিখোঁজের ৫ দিন পর প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ
  • আপডেট শুক্রবার, ১০ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৩৬ Time View
নিখোঁজের ৫ দিন পর প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার
নিখোঁজের ৫ দিন পর প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার

সকাল নারায়ানগঞ্জঃ ফতুল্লায় বুড়িগঙ্গা নদীতে নিখোঁজের পাঁচদিন পর মাহফুজুর রহমান জিসানের পেট কাটা লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। এ ঘটনাকে হত্যাকান্ড বলে উল্লেখ করে সুষ্ঠু তদন্ত দাবি জানিয়েছেন স্বজনরা।

শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান এলাকায় ধলেশ্বরী নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করে ডুবুরি দল। নিহত জিসান বাংলা ক্যাট কোম্পানির প্রকৌশলী পদে কর্মরত ছিলেন। এ ঘটনায় এখনো নিখোঁজ রয়েছেন জিসানের সহকর্মী প্রকৌশলী লিখন সরকার।

জিসানের বড় ভাই মো: শোয়েব আহমেদ বলেন, আমার ভাইয়ের লাশ আমরা অক্ষত পাই নি। তার মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়েছে, পেট কাটা রয়েছে এবং সেখান দিয়ে রক্তক্ষরণ হয়েছে। আমার ভাইকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি।

ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বিসিক স্টেশনের সিনিয়র অফিসার মো: কাজল মিয়া জানান, নিখোঁজ দুই প্রকৌশলীর সন্ধানে শুক্রবার সকাল থেকেই বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরী নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে তল্লাশি অভিযান শুরু করে ডুবুরি দল। এক পর্যায়ে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান এলাকায় ধলেশ্বরী নদী থেকে ডুবন্ত অবস্থায় জিসানের মরদহে উদ্ধার করা হয়। খবর পেয়ে স্বজনরা গিয়ে জিসানের লাশ শনাক্ত করেন।

ফতুল্লা থানার ওসি মো: আসলাম হোসেন জানায়,জিসানের লাশ ময়না তদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের পর সেখান থেকে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

একই সাথে এখনো নিখোঁজ থাকা লিখন সরকারের সন্ধানে ফায়ার সার্ভিসের তল্লাশি অভিযান চলছে জানিয়ে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের নারায়লগঞ্জ জেলা উপ-পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন বলেন, ঘটনার দুইদিন পর খবর পেয়ে আমরা গত তিনদিন যাবত নিখোঁজদের সন্ধানে তল্লাশি চালিয়েছে। একজনের লাশ ইতিমধ্যে উদ্ধার করেছি। নিখোঁজ অপরজনকেও আমরা উদ্ধার না করা পর্যন্ত তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রাখব।

প্রসঙ্গত ৫ জানুয়ারি দিনগত রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার রাজাপুর এলাকায় বুড়িগঙ্গা এন্টারপ্রাইজের ভেকু মেরামতের কাজ শেষ করে ফেরার পথে নিখোঁজ হন বাংলা ক্যাট কোম্পানির দুই মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুর রহমান জিসান ও লিখন সরকার। এ ঘটনায় জিসানের স্ত্রী রাকিয়া সুলতানা রাজধানীর আশুলিয়া থানায় বাদি হয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তবে জিসানের পরিবার শুরু থেকেই দাবি করে আসছেন, এ ঘটনার সাথে ফতুল্লার রাজাপুর এলাকার বুড়িগঙ্গা এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারি সজীব ও তার কর্মচারী পায়েলকে দায়ী। তাদের দাবি, সজীব ও পায়েল ঘটনার বিষয়ে সবকিছু জানেন। কেননা জিসান ও লিখন নিখোঁজের বিষয়টি সজীব একদিন গোপন রেখেছেন এবং তার সাথে যোগাযোগ করলে বিভিন্ন সময়ে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করেছেন। এছাড়া সজীবের বড় ভাই ওই এলাকার ইউপি মেম্বার। সেই প্রভাবে সজীব বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছেন। তাদের দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার রহস্য বের হয়ে আসবে বলে মনে করছেন নিহত জিসানের স্বজনরা।

জিসানের ফুপাতো ভাই সম্রাট জানান, জিসান ও লিখন দুজনই পরিবার নিয়ে রাজধানীর আশুলিয়া এলাকায় একই মালিকের বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকতেন। জিসানের তিন বছরের ও তিন মাসের দুইটি পুত্র সন্তান রয়েছে। নিখোঁজের ঘটনার পর থেকে জিসানের স্ত্রী রাকিয়া সুলতানা শোকে পাথর হয়ে গেছেন। দুই শিশু সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন স্বজনরা।

আরও সংবাদ
© ২০২৩ | সকল স্বত্ব সকাল নারায়ণগঞ্জ কর্তৃক সংরক্ষিত
DEVELOPED BY RIAZUL