ফতুল্লা বিসিকে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের মানববন্ধন

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

শ্রমিক নেতা বিপ্লব, সেলিম, শরীফের নামে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং বাসদ অফিসে হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ফতুল্লা বিসিকে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের মানববন্ধন ও মিছিল

সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, জেলার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফ এর নামে দায়েরকৃত ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং বাসদ ও শ্রমিক ফ্রন্টের নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা কার্যালয়ে শ্রমিক নেতৃবৃন্দের উপর হামলা ও অফিস ভাংচুরকারী চাঁদাবাজ ঝুটসন্ত্রাসী সুমন, জুয়ারি জাহাঙ্গীরসহ সকল সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট বিসিক শিল্পাঞ্চল শাখার উদ্যোগে আজ বিকাল ৫ টায় বিসিক ২নং গেইটে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট বিসিক শিল্পাঞ্চল শাখার সভাপতি নূর হোসেনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাসদ জেলার অন্যতম নেতা ফতুল্লা থানার সমন্বয়ক এম এ মিল্টন, রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক এস এম কাদির, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সহ-সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সোহাগ, গাবতলী-পুলিশ লাইন শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ৮ আগস্ট সন্ধ্যায় মাসদাইর চৌধুরী কমপ্লেক্স এলাকায় অবস্থিত বাসদ ও শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা কার্যালয়ে সভা চলাকালে ঝুটসন্ত্রাসী সুমন ও জুয়ারী জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে ৩০/৩৫ জন সন্ত্রাসী অফিসে প্রবেশ করে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক ও গাবতলী পুলিশ লাইন শাখার সভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফের কাছে ৭ লাখ টাকা ও জুয়ারি জাহাঙ্গীর ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে এবং চাঁদা না দিলে শরীফকে হত্যা করবে এবং অফিস উচ্ছেদ করবে বলে হুমকি দেয়।

শরীফ টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে সন্ত্রাসীরা শরীফসহ উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উপর হামলা চালায় এবং এলোপাথারী মারধর করে ও অফিসের ভিতরে ভাংচুর চালায়। এতে মারাত্মক আহত রিকশা, ব্যাটারি রিকশা, ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক মেহেদী হাসানসহ কমপক্ষে ১০ জন শ্রমিক ফ্রন্ট নেতা-কর্মী আহত হয়।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ঝুটসন্ত্রাসী সুমন ও জুয়ারি জাহাঙ্গীর বিএনপি-জামাত শাসনামলে মাসদাইর-গাবতলী এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী। বহু মামলার আসামী। বর্তমানে এরা মুখোশ পরিবর্তন করে এলাকায় চাঁদাবাজি সন্ত্রাস অব্যাহত রেখেছে। বাসদ অফিসে হামলায় মামলা হলেও পুলিশ সুমন,জাহাঙ্গীরসহ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করেনি। প্রশাসনের এই নির্বিকার ভুমিকার কারণেই এসব সন্ত্রাসীরা আজ আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

আসামী সন্ত্রাসী সুমন ও জাহাঙ্গীর প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে, আমাদের সংগঠনের কর্মীদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে। পুলিশের নির্বিকার ভূমিকার সুযোগ নিয়ে সুমন ও জাহাঙ্গীর পৃথকভাবে সমাজাতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নেতা আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফের নামে কোর্টে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ২টি পৃথক মিথ্যা মামলা দিয়েছে। নেতৃবৃন্দ বাসদ নেতাদের নামে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার ও বাসদ অফিসে হামলাকারী সুমন ও জাহাঙ্গীরসহ অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

বার্তা প্রেরক-
হাসনাত কবীর