ভুয়া উপ পরিচালক পরিচয়দানকারী প্রতারককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ ও এনএসআই

সকাল নারায়ণগঞ্জ:

স্টাফ রিপোর্টার (আশিক)

রাজধানীর মিরপুর মডেল থানাধীন এলাকা হতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভুয়া উপ পরিচালক পরিচয়দানকারী প্রতারককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ ও জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা(এনএসআই)।

সাম্প্রতিককালে প্রতারণার নতুন নতুন কৌশল ব্যবহার করে সাধারণ জনগণকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই শ্রেণীর পেশাদার প্রতারক চক্র।

ধর্ষণ, জঙ্গীবাদ, মাদকসহ অন্যান্য সকল ধরণের অপরাধ নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি সাম্প্রতিক সময়ে এসব প্রতারক চক্রের সাথে সম্পৃক্ত অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে র‌্যাব-৪ এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

নাজমুল আহসান বিজয় ওরফে আমিনুল ইসলাম জন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উপ পরিচালক এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর উপ-পরিচালক পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে অসংখ্য লোকের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাতের সাথে জড়িত থাকার তথ্য র‌্যাব ও জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর নিকট আসে।

এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত আমিনুল ইসলাম জনকে দীর্ঘদিন যাবত র‌্যাব-৪ এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে সত্যতার প্রমাণ পায়।

এই তথ্যের ভিত্তিতে রোববার (১৩ মার্চ) সকাল ৫টা ২০ মিনিটের সময় জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এর সহযোগীতায় পেশাদার প্রতারক চক্রের মূলহোতা নাজমুল হাসান ওরফে আমিনুল ইসলাম জনকে (৩৯) মিরপুর-১, আহম্মেদ নগর, জোনাকি রোড থেকে আটক করেছে র‌্যাব-৪।

জিজ্ঞাসাবাদে তার নিকট থেকে প্রতারণা কৌশল সম্পর্কে তথ্য প্রাপ্তির পাশাপাশি প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত নানাবিধ নথিপত্র ও ভুক্তভোগী কর্তৃক ব্যাংকের মাধ্যমে প্রদত্ত ১ লক্ষ টাকা প্রদানের স্লিপ, ১৯টি উপ পরিচালক, এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরো এর ভিজিটিং কার্ড এবং ০১টি উপ পরিচালক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরো এর ভুয়া পরিচয়পত্র জব্দ করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উক্ত গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি তার কৃতকর্মের বিষয় স্বীকার করার পাশাপাশি জানায় যে, সে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত এনজিও অ্যাফেয়ার্স ব্যুরোর উপ পরিচালক, কখনো এনএসআই এর উপ- পরিচালক পরিচয় দিয়ে সাধারণ ছাত্র, বেকার যুবক এবং দরিদ্র ছাত্রদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে চাকুরীর আশ্বাস দিতো। গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন।

অদূর ভবিষ্যতে এইরূপ অসাধু প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এর জোরালো সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত থাকবে।