1. [email protected] : সকাল নারায়ণগঞ্জ : সকাল নারায়ণগঞ্জ
  2. [email protected] : skriaz30 :
  3. : wpcron20dc4723 :
তল্লা মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায়, কারণ চিহিৃত করছে তদন্ত কমিটি - সকাল নারায়ণগঞ্জ
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ আপডেট
বাবার জন্য নারায়ণগঞ্জ এর মানুষের কাছে দোয়া চাইলেন অয়ন ওসমান ছাত্রলীগ সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশে আছে অয়ন ওসমান এরশাদের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে মুন্সিগঞ্জ জেলা জাপা’র মিলাদ , দোয়া ও খাবার বিতরন  রূপগঞ্জে পুলিশের অভিযানে ৬ অপহরণকারী আটক  জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ঠিকাদারদের সাথে লিরা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ”র মতবিনিময় সভা-সম্পন্ন  ফ‌টো সাংবা‌দিক ‌মোক্তা‌র হোসেনের মাতার ইন্তেকা‌লে আজ‌মেরী ওসমা‌নের গভীর শোক না’গঞ্জ জেলা ও মহানগর ঐক‌্য প‌রিষ‌দের কর্মী স‌ম্মেলন অনু‌ষ্ঠিত পূর্বাচলে শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ রূপগঞ্জে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের বিশেষ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধে শরণার্থী শিবিরে ভারতের ভূমিকা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

তল্লা মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায়, কারণ চিহিৃত করছে তদন্ত কমিটি

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ
  • আপডেট মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৩ Time View

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

স্টাফ রিপোর্টার (আশিক)

নারায়ণগঞ্জ পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদের ভয়াবহ সেই বিস্ফোরণের কারণ হিসাবে দুঘর্টনায় গঠিত একাধিক তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, মসজিদের ভিতরে জমে থাকা গ্যাসের সংস্পর্শে বৈদ্যতিক লাইন পরিবর্তন করতে গিয়ে বিত্যুতের স্পার্কের সংস্পর্শে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায় ৩১জন মুসল্লী মারা যান। 


৫ জন এখনো মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। গতকাল সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর)  রাতে একাধিক তদন্ত কমিটির সদস্যদের সাথে আলাপে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। 


তিতাস, ফায়ার সার্ভিস, ডিপিডিসি ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গঠিত চারটি তদন্ত কমিটির নির্ভরযোগ্য সূত্রও গ্যাসের সাথে বিদ্যুতের স্পার্কে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। মূলত তিনটি মূল কারণ ব্যতীত আগুনের অন্য কোনো সূত্র বা কারণ আপাতত তদন্ত কমিটিগুলোর সামনে উঠে আসেনি। 


তবে একাধিক সূত্র জানিয়েছে, ঘটনার সঙ্গে মসজিদ কমিটি, ডিপিডিসি ও তিতাস কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও গাফিলতির বিষয়টিও এড়িয়ে যাচ্ছে না কমিটির রিপোর্ট থেকে। 

কমিটির সূত্রগুলো বলছে, নাশকতার যেই আশঙ্কা বা সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছিল তদন্তে সেই সমীকরণের কোনো মিল এখনও পাওয়া যাচ্ছে না। ডিপিডিসির গঠিত তদন্ত কমিটি গত রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) তাদের তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন তদন্ত কমিটির সদস্য ও নির্বাহী প্রকৌশলী (পশ্চিম) আনিসুর রহমান। 


তিনি জানিয়েছেন, আগুনের মূল কারণ হিসেবে তিতাসের লিকেজ হওয়া গ্যাসকেই প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। জানা গেছে, আগামী সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়েই গঠিত বাকি তদন্ত কমিটিগুলো তাদের রিপোর্ট স্ব স্ব দফতরে জমা দিতে যাচ্ছে। 


নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, ইতোমধ্যেই নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্তে বৈদ্যুতিক স্পার্ক থেকেই আগুনের বা বিস্ফোরণে সূত্রপাত হয়েছে বলে- এমন তথ্যই উঠে এসেছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসকের কাছে ওই কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়ার কথা থাকলেও তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহেরা ববির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিবেদন জমা দিতে আরও পাঁচ কার্যদিবস সময় বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে তথ্যানুসন্ধানে ও তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জেলা প্রশাসনের তদন্তে পাওয়া গেছে- দেড় যুগেরও বেশি আগে পশ্চিম তল্লা জামে মসজিদটির পাকা স্থাপনা নির্মাণ করা হয়। 


মসজিদে প্রবেশ পথের গেটে একটি কলাপসিবল গেট, দুটি কাচের টানা দরজা ছিল। মসজিদের বারান্দা থেকে ভেতরের অংশ থাই দিয়ে সাঁটানো ছিল। থাই দিয়ে ঘেরা অংশের ভেতরে ১৫টি জানালা, ছয়টি এয়ারকন্ডিশন, ২৬টি সিলিং ফ্যান, ৭০টি সুইচ সকেট ছিল। তদন্তে আরও উঠে এসেছে- মসজিদের বিদ্যুৎ প্যানেল বোর্ড ও ডিস্ট্রিবিউশনের দুটি লাইন ব্যবহার করা হতো। যার একটি লাইন ছিল বৈধ, অন্যটি অবৈধ। একটি লাইন ম্যানুয়ালি এবং একটি লাইন অটো বা স্বয়ংক্রিয় ব্যবহার হতো যা মসজিদ কমিটির সাক্ষ্যসহ অনেকের বক্তব্যেই উঠে এসেছে।


 ঘটনার দিন ৪ সেপ্টেম্বর সকাল থেকেই মসজিদে গ্যাসের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছিল। মসজিদের মুসল্লিরা এশার নামাজের ফরজ আদায় করে অনেকে মসজিদ থেকে বের হয়ে যান। আনুমানিক ৮টা ৪৫ মিনিটের সময় বিদ্যুৎ চলে যায়। এ সময় অনেক মুসল্লি সুন্নতসহ অন্যান্য নামাজ আদায় করছিলেন। মসজিদের মুয়াজ্জিন দেলোয়ার হোসেন এ সময় বিদ্যুতের লাইন চেঞ্জ করতে গেলে স্পার্ক হয়। 


এ সময় দরজা-জানালা বন্ধ থাকায় মসজিদে জমে থাকা গ্যাসের কারণে আগুন ধরে যায়। এতে মসজিদের ভেতরে থাকা মুসল্লিদের শরীরে আগুন ধরে যায়। এছাড়া মসজিদটি যেখানে নির্মাণ করা হয়েছে সেই রাস্তাটি অনেক সরু এবং নিচু এলাকা হওয়ায় দগ্ধ ও হতাহতের সংখ্যা বেড়েছে বলেও তদন্তে উঠে এসেছে।


 এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও তদন্ত কমিটির প্রধান খাদিজা তাহেরা ববি বলেন, তদন্তে বেশ অগ্রগতি হয়েছে। অনেক তথ্য আমরা পেয়েছি। আমরা বিদ্যুৎ, তিতাস গ্যাস, মসজিদ নির্মাণে ত্রুটিসহ সব বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। অপরদিকে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষের গঠিত তদন্ত কমিটিতে একই রকম কারণ উঠে এসেছে বলে জানিয়েছে তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র।


 ওই সূত্র জানায়, আমরা অত্যন্ত বৈজ্ঞানিক উপায়ে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার করে এবং বেশ কিছু বিষয় নিরীক্ষণের মধ্য দিয়েই তদন্ত করছি।


 বিশেষ করে বিস্ফোরণ বা আগুনের ঘটনার পরপরই আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছি। সেখানকার পরিস্থিতি খুব ভালোভাবেই নিরীক্ষণ ও পর্যবেক্ষণ করেছি। সূত্র আরও জানায়, তিতাসের লিকেজ হওয়া গ্যাস থেকেই আগুনের ঘটনা ঘটেছিল সেটি প্রাথমিক পর্যায়ে আমরা দুটি বিষয়েই বুঝতে সক্ষম হয়েছিলাম। একটি হল পুরো বিস্ফোরণের এলাকাটিতে অর্থাৎ মসজিদের অভ্যন্তরে কোনো ছাই বা কালো দাগ ছিল না, যেটি গ্যাস থেকে আগুন লাগার কারণেই হওয়া সম্ভব। দ্বিতীয়টি হল পানি জমার কারণে মসজিদের ফ্লোর থেকে বিপুল পরিমাণ গ্যাসের নির্গমন হয়েছিল।

আরও সংবাদ
© ২০২৩ | সকল স্বত্ব সকাল নারায়ণগঞ্জ কর্তৃক সংরক্ষিত
DEVELOPED BY RIAZUL