ইসলামী আন্দোলন তার নীতি ও আর্দশরে উপর অটল কারো তাবদোরতিে বশ্বিাসী নয়

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

১৯৮৭ সালরে ২৩ র্মাচ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে একটি রক্তাক্ত অধ্যায়রে মাধ্যমে সূচনা হয়। যার শুরুটাই হয়ছেে রাজপথে তাজা রক্ত বর্সিজন দয়ি,ে ত্যাগরে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে সে দল কখনই কারো তাবদোরি করতে পারে না। র্বতমানে প্রচলতি অপরাজনীতরি গড্ডালকিা প্রবাহে গা ভাসয়িে দলিে বহু আগইে এম.পি মন্ত্রী থাকত এ দলরে অনকে নতোর্কমী। কন্তিু ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে কখনই তার নীতি ও আর্দশরে জলাঞ্জলি দয়ে নাই, ভবষ্যিতওে দবিে না ইনশাআল্লাহ। কারণ আমাদরে লক্ষ্য শুধুই কোন ব্যক্তকিে ক্ষমতায় বসানো নয়, বরং ইসলামরে সুমহান নীতি আর্দশ দয়িে প্রয়ি মাতৃভূমকিে ঢলেে সাজয়িে ইসলামী কল্যাণরাষ্ট্র প্রতষ্ঠিা করা। যখোনে কোন অসহায় মানুষ কষ্টে দনিাতপিাত করবে না। থাকবে না কোন চুর,ি ডাকাত,ি সন্ত্রাসী, রাহাজানি ও র্ধষণ। অথচ আজ ক্ষমতা কুক্ষগিত রাখার জন্য কত কছিুইনা করছে মানুষ! কারণ ক্ষমতা হারালে তো আর জনগণরে সম্পদ চুরি করা সম্ভব হবে না। বন্ধ হয়ে যাবে সকল র্দুনীত।ি
গতকাল ২৪ নভম্বের মঙ্লবার বকিাল ৩টায় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে নারায়ণগঞ্জ মহানগররে সভাপতি মুহা. নুর হোসনে ও সক্রেটোরি সুলতান মাহমুদ এক যুক্ত ববিৃততিে এ কথা বলনে।

নতেৃদ্বয় আরও বলনে, জনগণরে অধকিার ফরিয়িে দতিে ও আধুনকি কল্যাণরাষ্ট্র গঠন করতইে বগিত সংসদ নর্বিাচনে এককভাবে ৩০০ আসনে র্প্রাথী দয়িছেলি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে। জনগণরে আস্থা ও বশ্বিাস তরৈি হয়ছেে চরমোনাই পীর সাহবে হুজুররে এ সংগঠনরে উপর। গত ১১ নভম্বের ২০২১ কাশপিুর ইউনয়িন নর্বিাচনে বভিন্নি হুমকি ও চাপ সৃষ্টি করে নর্বিাচন থকেে সরে আসতে বাধ্য করা হয়। তারপরও ১২ হাজাররে বশেি ভোট পড়ছেে হাতপাখা প্রতীক।ে এটা জনগণরে ভালবাসার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। তাছাড়াও চরমোনাই ইউনয়িনে আওয়ামীলীগ ও বএিনপি জোট করার পরও হাতপাখার র্দূগ ভাংতে পারনে।ি ৩৫৫০ ভোটরে ব্যাবধানে জয়ী হয়ছেে হাতপাখা। এজন্য মহান আল্লাহর দরবারে শুকরয়িা। লক্ষীপুরে চরকাদরিা ইউনয়িনে পরপর ২ র্টাম চয়োরম্যান নর্বিাচতি হন হাতপাখার র্প্রাথী মাওলানা খালদি সাইফুল্লাহ। বরশিাল জাগুয়া ইউনয়িন,ে মাগুরা সত্যজৎিপুর, কুড়গ্রিাম চরভুরুঙ্গীমারি ইউনয়িনে বপিুল ভোটে বজিয়ী হয়ছেনে ইসলামী আন্দোলনরে হাতপাখা র্প্রাথী।

আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সটিি র্কপোরশেন নর্বিাচনে বরাবররে মত এবারও সম্ভাব্য ময়ের র্প্রাথী হসিবেে মুফতি মাসুম বল্লিাহ’র নাম রয়ছে।ে তাছাড়াও সটিি নর্বিাচনে ২৭টি ওর্য়াডইে কাউন্সলির র্প্রাথী দতিে যাচ্ছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদশে। কারো রক্তচক্ষু, হুমক-িধমকি ইসলামী আন্দোলনরে গতপিথকে রুদ্ধ করতে পারবনো, ইনশাআল্লাহ।

ইসলামী আন্দোলনরে এ সফলতা ও জনপ্রয়িতা দখেে অনকেইে হংিসার আগুনে জ্বলছ।ে প্রতহিংিসার বশর্বতী হয়ে মথ্যি ও অপপ্রচারে লপ্তি হচ্ছ।ে যত্তসব বানোয়াট ও অপ্রাসঙ্গকি কথা বলে জনগণরে মাঝে ববিধে ও বশিৃঙ্খলা সৃষ্টরি পাঁয়তারা চালাচ্ছ।ে আমরা এর তীব্র নন্দিা জানাই। পাশাপাশি ওই সকল ভাইদরে আহবান জানাই ইসলামী আন্দোলনরে সুশীতল ছায়াতলে এসে নজিরে জীবন ধন্য করি এবং আধুনকি কাল্যাণরাষ্ট্র গঠনে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে শরীক হই।