আজকের মধ্যেই কুরবানি শেষ করার অনুরোধ

সকাল নারায়ণগঞ্জ অনলাইন ডেস্কঃ

আজকের মধ্যেই কুরবানির পশু জবাই দেওয়ার কাজ শেষ করার জন্য ঢাকাবাসীকে অনুরোধ করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নগর ভবনের শীতলক্ষ্যা হলে স্থাপিত নিয়ন্ত্রণ কক্ষে পশুর বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে মেয়র তাপস এই অনুরোধ জানান।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছেরের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

শেখ তাপস বলেন, আমি ঢাকাবাসীকে নিবেদন করছি, আপনারা আজকের মধ্যেই কুরবানি দেওয়া বা পশু জবাই শেষ করুন। আমাদের বিশাল জনবল নিরবচ্ছিন্নভাবে এই পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম করে থাকে। তাদেরও ঈদ আছে, তাদের বিশ্রামেরও প্রয়োজন আছে। আমরা তাদের একদিন ঈদের ছুটি দিতে চাই।

‘নিতান্তই কেউ যদি আজকের মধ্যে কুরবানির পশু জবাই শেষ করতে না পারেন, তাহলে দয়া করে আপনারা আগামীকাল নিজ দায়িত্বে পশুর বর্জ্য নির্ধারিত ব্যাগে ভরে আপনার নিকটবর্তী অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রে রেখে আসবেন’, যোগ করেন মেয়র।

মেয়র বলেন, গত তিন দিন ধরে (২০ জুলাই রাত থেকে) আমাদের জনবল কাজ করছে, আমাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একটানা কাজ করে চলেছে। বাস্তবতা হলো – – আমরা একদিকে বর্জ্য অপসারণ করে আসি, এরপর লোকজন আবারও উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য ফেলে আসে। তাই শতভাগ বর্জ্য অপসারণের পরও কিছু কিছু জায়গায় আবারও বর্জ্য দেখা যায়। সেটা প্রত্যাশিত নয়। আমরা জনগণকে আমাদের এই বিশাল কর্মযজ্ঞে সহযোগিতা করার আহ্বান জানায়। আমরা যে ব্যাগ সরবরাহ করেছি, দয়া করে তা সংগ্রহ করুন এবং সেই ব্যাগে ভরে আপনার পশুর বর্জ্য আমাদের বর্জ্য সংগ্রহকারীদের কাছে হস্তান্তর করুন। উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য ফেলবেন না।

ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, দ্বিতীয় দিনও প্রায় ৩০ শতাংশ কুরবানি দেওয়া হয়। আজকে যে সকল পশু জবাই করা হবে, সেসব পশুর বর্জ্য আমরা আগামী ১০ ঘণ্টার মধ্যে অর্থাৎ রাত বারোটার মধ্যে অপসারণ করব।

দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রায় ৮ হাজার টন কুরবানির পশুর ও হাটের বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে বলে জানান মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস।

মতবিনিময়ে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর মো. বদরুল আমিন, সচিব আকরামুজ্জামান, পরিবহন বিভাগের মহাব্যবস্থাপক বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. জাফর আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আনিছুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।