আনন্দধামের সহযোগিতায় বংগবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালিত এইডস নিয়ন্ত্রনে রক্ত জরিপ ক্যাম্পে হাসিনা রহমান সিমু সহ কর্মকর্তা বৃন্দ।

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

স্টাফ রিপোর্টার (আশিক)

আনন্দধামের সহযোগিতায় বংগবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এইডস নিয়ন্ত্রনে রক্ত জরিপ।


নিয়ন্ত্রিত জীবনই মরনঘাতী এইডস থেকে পৃথিবীকে মুক্তি দিতে পারে – হাসিনা রহমান সিমু
অদ্য ০৮ই নভেম্বর ২০২০ বংগবন্ধু শেখ মুজিব জাতীয় মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের  তত্ত্বাবধানে ও আনন্দধামের  সহযোগিতায় নারায়ণগঞ্জের কলেজ রোডে  আয়োজিত ঝুকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর মধ্যে আচরণগত নিয়ন্ত্রণ  ও রক্ত জরিপ ২০২০ “স্যাটেলাইট” পরিদর্শনে আসেন আনন্দধামের নির্বাহী চেয়ারম্যান হাসিনা রহমান সিমু। 


এই কার্যক্রমের আওতায় ঝুকিপূর্ণ জনগোষ্ঠী অর্থাৎ মহিলা যৌন কর্মী, পুরুষ যৌন কর্মী, হিজরা ও সমকামী ব্যক্তিবর্গ যাদের মাধ্যমে যৌন বাহিত রোগ বিশেষ করে মরনঘাতী রোগ এইচ আই ভি বা এইডস বিস্তারের সমুহ সম্ভবনা রয়েছে, বিশেষ করে এদের ভিতর যারা ড্রাগ আসক্ত তাদের ব্যবহৃত ইনজেকশন সিরিঞ্জ পুনঃব্যবহারের প্রবনতা সহ বিভিন্ন আচরণগত বৈশিষ্টের উপর নিয়ন্ত্রণের কায়েমের মাধ্যমে এইডসের ঝুকি হ্রাসে  এই রক্ত জরিপ কর্মসূচি স্যাটেলাইট গত ৪ঠা নভেম্বর ২০২০ থেকে ১৭ নভেম্বর ২০২০ ইং পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ এর কলেজরোড, গলাচিপাতে পরিচালিত হচ্ছে। 


বর্তমানে পৃথিবীতে প্রায় সারে তিন কুটি মানুষ এই রোগে মারা গেছে ও প্রায় চার কুটি এইডস আক্রান্ত মানুষ মৃত্যুর প্রহর গুনছে।


আনন্দধামের সহযোগিতায় নারায়ণগঞ্জে বংগবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল  বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজী বিভাগ কর্তৃক এই জরিপ ও সহযোগিতা কার্যকর পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনে জাতীয় এইডস নিয়ন্ত্রণ প্রোগ্রামের আওতায় এই কর্মসূচির কার্যক্রম চলছে।


এসময় হাসিনা রহমান সিমু উপস্থিত সবার উদ্দেশ্যে বলেন নিয়ন্ত্রিত জীবনই মরনঘাতী এইডস থেকে পৃথিবীকে মুক্তি দিতে পারে। এই ক্ষেত্রে আমাদের মধ্যে যারা ঝুকিপুর্ন জনগোষ্ঠী আছে তাদের সাথে অবাধ মিলামেশা আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তা নাহলে আমাদের মানবসভ্যতাই ঝুকির মধ্যে পরে যাবে। আর যারা ঝুকিপূর্ণ জনগোষ্ঠী তাদেরকে স্বাভাবিক নিয়ন্ত্রিত জীবনে ফিরে আসতে সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।


এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আনন্দধামের ভাইস চেয়ারম্যান মতিউর রহমান মুক্তি, পরিচালক রাজা মিয়া, পরিচালক মোঃ শহিদুল্লাহ, পরিচালক মোঃ শাহাদাত হোসেন, মাকসুদ হিটু, খোকন গাজী, মোঃ শাহাদাত, মনোয়ার মুন্না ও শ্যামল সহ বংগবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজী বিভাগের কর্মকর্তা বৃন্দ।