নারায়নগঞ্জবাসীর প্রতি কতৃজ্ঞ প্রকাশ করেন কমরেড রাশেদ খান মেনন।

কতৃজ্ঞ প্রকাশ করেন কমরেড রাশেদ খান মেনন
কতৃজ্ঞ প্রকাশ করেন কমরেড রাশেদ খান মেনন। (

আমি নারায়নগঞ্জবাসীর প্রতি কতৃজ্ঞ প্রকাশ করি কারন এই নারায়নগঞ্জ স্বাধীনতা আন্দোলনে ভূমিকা পালন করেছিলো।এখান থেকেই ট্রেনারী শ্রমিকরা আন্দোলন করেছিলো এবং সৈরাচারী সরকার এরশাদের বিরুদ্ধে আদমজী থেকে ঢাকা পর্যন্ত শ্রমিকদের আন্দোলনই এরশাদ সরকারকে ক্ষমতা থেকে পতন করতে বাধ্য করেছিলো।নারায়নগঞ্জ ওয়াকার্স পার্টি আরো এগিয়ে যাবে দ্রুতগতিতে নেতাদের নেতৃত্বের মাধ্যমে।

শুক্রবার(২৫অক্টোবর)সকাল ১০টায় নারায়নগঞ্জের ডিআআইটি চত্ব্রের সিটি সেন্টারের হল রুমে ওয়াকার্স পার্টির সম্মেলন উপলক্ষ্যে ওয়াকার্স পার্টি নারায়নগঞ্জ শাখার জেলা কাউন্সিল উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক মন্ত্রী ও ওয়াকার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাংসদ সদস্য কমরেড রাশেদ খান মেনন।

জেলা কাউন্সিল উদোধন অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন,আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে সামাজিক ন্যায্যতা, মানবিক মর্যাদা ও সমতা প্রতিষ্ঠা করা। এটা স্বাধীনতা সংবিধানেও উল্লেখ আছে। বর্তমান বাংলাদেশ আগের তুলনায় অনেক উন্নত হচ্ছে। পোষাক শিল্প থেকে ধরে কৃষি,মস্যৎ সব কিছুতেই। তবু এই দেশের মানুষ ঋন খেলাপি। এদেশে কারা ঋন খেলাপি গরিব, কৃষক নাকি ধনীরা। আপনার জানেন ৫বছর আগে আব্দুল মাল আবুল মুহিত সংসদে বলেছিলো আমার দেশ থেকে ৪লক্ষ ৯৬হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে সেই টাকা থাকলে আমি একটি বাজেট করতে পারতাম আর আমি বলি সর্বশেষ বাজেট অনু্যায়ী দেশ থেকে ৯লক্ষ হাজার কোটি টাকা কোথায় গেলো বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কিভাবে এই টাকা পাচার হলো। সরকার দূর্নীতি বিরোধী অভিযান শুরু করেছে তাতে আমি সাধুবাদ জানাই কিন্তু সরকারের যে সকল কর্মকর্তার বাড়ি সিঙ্গাপুর বা আমেরিকাতে আছে তাদের আগে ধরে খুঁজ নেন।

তিনি বর্তমান দেশের অবস্থা উল্লেখ করে বলেন, আজকে অপরাধ কারা করছে যারা টাকা লুটপাত করে নিয়ে গেছে তারা নাকি আমার শ্রমিকেরা। দেশে খুন,গুম,লুট চরম পর্যায় বেড়ে গেছে আর এর বেশি সমস্যায় পড়ছে আমাদের দেশের নারীরা। নারীদের প্রতি যে সহিংসতা বেড়েছে তার প্রতিবাদ করতে হবে সেই সাথে যুব সমাজের হতাশা দূর করতে হবে।এখন বেকার যুব সমাজকে মাদক দিয়ে ধ্বংস করা হচ্ছে এর থেকে পরিত্রান করতে হবে।আপনারা জানেন সাপ বিষাক্ত। সুযোগ পেলেই বিষাক্ত সাপ ছুবল মারবে তার প্রমান ভোলা,রাঘব,নাসিরাবাদ। সময়ের অপেক্ষায় মুখ ফুটে সব বেরোনোর। এদেশের ঐকতার কোন বিকল্প নেই। এই ওয়াকার্স পার্টি দেশের স্বাধিকারের,শ্রমিকদের অধিকারের আন্দোলন করেছে। আমরা ঐকতার মধ্যেই আছি। মুক্তিযুদ্ধের বিকল্প রাজাকার,সাম্প্রদায়িকতা, ষড়যন্ত্র দূর্নীতিবাজ নয়। মুক্তিযুদ্ধের বিকল্প মুক্তিযুদ্ধ আর যারা মুক্তিযুদ্ধকে বুকে ধারন করে তারা ৩০লক্ষ শহীদকে সম্মান করতে জানন।

১৪ দলের সাথে ওয়াকার্স পার্টি সংশ্লিষ্ট আছে চিঠির ব্যাখ্যার ব্যাপারে তিনি বলেন,আমরা ১৪ দলের সাথে সংশ্লিষ্ট আছি বলে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে তার ব্যাখ্যা দেওয়া হবে। এ নিয়ে আমি ঢাকাতে একটি সংবাদ সম্মেলন করি এবং সেখানে চিঠির ব্যাখ্যায় যা বলবো সেই সম্পর্কে  সব বলি আমরা লুকানো কোন কথা বলি না।১৪দলের নেতার সাথে এই নিয়ে কথা হয়েছে এবং আমাদের দলের নেতাকর্মী মন্তব্য নিয়েই এই চিঠির ব্যাখ্যা আমরা দিবো।

ওয়াকার্স পার্টির সম্মেলনের ব্যাপারে তিনি বলেন,আসছে আমাদের ওয়াকার্স পার্টির সম্মেলন সেই উপলক্ষ্যেই প্রতি জেলায় জেলা কাউন্সিল হচ্ছে।আমাদের সম্মেলনের স্লোগান সামাজিক ন্যায্যতা ও সমতা প্রতিষ্ঠা করা। আমরা তার জন্যই কাজ করবো।

জেলা কাউন্সিল প্রধান অতিথির বক্তব্যের শেষে রাশেদ খান মেনন জেলা কাউন্সিল শুভ উদ্বোধন করেন।