ফসলের মাঠে শস্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

স্টাফ রিপোর্টার (আশিক)

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ফসলের মাঠে শস্য রোপণ করে জাতির পিতার প্রতিকৃতি তৈরি করেছেন এক কৃষক। বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা, জাতীয় পতাকা আর প্রকৃতি একইসূত্রে গাঁথা। অপরূপ প্রকৃতির লাল-সবুজ ফসলের মাঠে রঙিন লালশাক আর সরিষা রোপণ করে পরম মমতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ও স্মৃতিসৌধ এঁকেছেন ঈশ্বরগঞ্জের কৃষক আবদুল কাদির। বঙ্গবন্ধুর ছবির চারপাশে জাতীয় পতাকা, জাতীয় ফুল শাপলা আর নৌকার ছবি বাড়িয়েছে সৌন্দর্যের মাত্রা।

লালশাক আর সরিষার চারাগুলো বড় হচ্ছে আর স্পষ্ট ও নান্দনিক হয়ে উঠছে বাংলাদেশের স্থপতির অবয়ব। বঙ্গবন্ধুর প্রতি অগাধ ভালোবাসা থেকেই ফসলের এমন শিল্পকর্ম বলে জানান কৃষক আব্দুল কাদির। যে জমিনে পরম ভালোবাসায় বেড়ে উঠে শষ্য, সেই জমিতে হৃদয়খচিত ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেন তিনি। 


মুজিববর্ষ উপলক্ষে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে নিজের জমিতে লালশাক ও সরিষা দিয়ে পরম মায়ায় এঁকেছেন জাতির জনকের প্রতিকৃতি, স্মৃতিসৌধ, নৌকা, শাপলা ও মুজিববর্ষ। শিল্পী কৃষকের সৌন্দর্যময় ফসলের মাঠ দেখতে প্রতিদিন ভিড় করছেন মানুষ। গত বছরও নিজের স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে ‘ভালোবাসার জমিন’ বানিয়েছিলেন কৃষক আবদুল কাদির।

ফসলের মাঠে ‘নকশি কাঁথা’’ এঁকে আলোচিত হয়েছিলেন তিনি। এবার তার ভালোবাসার জমিনে লালশাক আর সরিষা দিয়ে আঁকলেন বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য। কৃষক আবদুল কাদিরের বাড়ি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে উপজেলার আঠারবাড়ি ইউনিয়নের পাড়া খালবলা গ্রামে।

কৃষক মো. তারা মিয়ার মেঝ ছেলে আবদুল কাদির। স্ত্রীর নাম মকসুদা আক্তার। দুই ছেলে ও এক মেয়ের জনক ৪১ বছর বয়সী আবদুল কাদির পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ার সময় নিজেদের জমিতে কাজ শুরু করেন। পরে আর পড়ালেখা হয়নি। মাঠেই দিন-রাত পরিশ্রম করে সোনার ফসল ফলান তিনি।

 
১ ডিসেম্বর নিজের ৩৩ শতক জমিতে পাড়া খালবলা বন্ধু মহল ক্লাবের সদস্যদের নিয়ে এঁকেছেন অনন্য শিল্পকর্ম। চারদিকে যখন ভাস্কর্য নিয়ে তোলপাড় চলছে সে সময় সরিষা ও লালশাক দিয়ে নিজের জমিতে পরম মায়ায় রূপ দিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি। সঙ্গে এঁকেছেন মুজিব শতবর্ষ, স্মৃতিসৌধ, শাপলা ও নৌকা। কাদিরের শৈল্পিক কৃষিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি দেখতে ও ছবি তুলতে জমির পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে বাঁশ দিয়ে একটি টাওয়ার।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে এবং চলমান ভাস্কর্য নিয়ে তোলপাড়ের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর চেতনা জাগ্রত রাখতে কৃষক কাদির নিজের সামর্থ্যানুযায়ী ফসলের মাঠে হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসার প্রকাশ ঘটিয়েছেন। কৃষক কাদির বলেন, আমার তো আর সভা- সমাবেশে বক্তব্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের সুযোগ নেই। আমার কর্মক্ষেত্র আর ভালোবাসার স্থান ফসলের ক্ষেতেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভালোবাসার প্রকাশ ঘটিয়েছি। 


তিনি বলেন, বছরের অন্য সময় জমি চাষ করে আর্থিক লাভবান হন। কিন্তু জাতির জনকের চেতনা সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে ভিন্ন কিছু করেছি। ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাধন কুমার গুহ মজুমদার জানান, কৃষক কাদির মানসিক সৌন্দর্যের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছেন ফসলের মাঠে।

আর্থিক লাভবান না হলেও দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন শৈল্পিক কাজ দেখতে আসার মধ্যেই তৃপ্তি কৃষকর। তার কাজে কৃষি বিভাগ গর্বিত। তাকে রাজস্ব বাজেটের সরিষার প্রদর্শনী মাঠ দেওয়া হয়েছে। আগামী বছরের বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকের জন্য তার নাম প্রস্তাব করা হবে।