কাউন্সিলর দিনার শোক,”এমন একজন গুনী জ্ঞানী মুরুব্বীকে হারালাম”

সকাল নারায়ণগঞ্জঃ

নারায়ণগঞ্জের যুদ্ধকালীন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমিনুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ৭,৮,৯ নং ওর্য়াডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আয়শা আক্তার দিনা।

রোববার (৫ জুলাই) রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে মরুহুমের আত্নার মাগফিরাত কামনা করে তিনি এ শোক জানান।

বিবৃতিতে দিনা জানান,নারায়ণগঞ্জের যুদ্ধকালীন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আমিনুর রহমান আজ বিকেল ছয়টায় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন।আগে তার সাথে সিটি কর্পোরেশন বা অন্য কোথাও দেখা হলে শুধু সালাম দিতাম এ পর্যন্তই ছিলো তার সাথে আমার সম্পর্ক।

একদিন আমি আর প্যানেল মেয়র-১ বিভা হাসান সিটি কর্পোরেশন এ তার অফিসে বসে গল্প করছি এমন সময় আমিনুর চাচা বিভা ভাবীর অফিসে ঢুকলো।আমি যথারীতি তাকে সালাম দিলাম।সেদিন প্রথম তার সাথে অনেকক্ষণ গল্প করলাম।প্রথমেই রাজনৈতিক আলোচনা শুরু করলো তিনি সিরাজ সিকদার কে নিয়ে রাজনৈতিক আলোচনা শুরু করলেন আমিও আমার যতটুকু রাজনৈতিক জ্ঞান বা ইতিহাস জানি এ নিয়ে কথা বলতে থাকলাম একপর্যায়ে তিনি আমার সাথে কথা বলে মজা পেলেন এবং বললেন তুমিতো ভালোই রাজনৈতিক ইতিহাস জানো তার মুখে আমার এই প্রশংসাটুকু শুনে ভালো লাগলো তারপর কথা প্রসঙ্গে চলে আসলাম আমরা কবিতার জগতে।

ভারতের, বাংলাদেশের বিভিন্ন নামীদামি কবিদের কিছু কবিতা তিনি বলতে শুরু করলেন আমিও যেহেতু কবিতার অনেক ভক্ত এবং তার বলার বেশির ভাগ কবিতাই মুখস্ত আমি ও সাথে সাথে বলতে শুরু করলাম তিনি আমার কবিতার এই বিষয়টি নিয়েও প্রশংসা করলেন।

তারপর একসময় আমরা আলোচনার ফাকে চলে এলাম ইসলাম ধর্ম নিয়ে আলোচনায়।আলোচনার এক পর্যায়ে তিনি আমাকে ১১ টি মূল্যবান দুরুদ বলতে লাগলেন আমি এই দুরুদ এর তাত্পর্য বুঝতে পেরে তাকে অনুরোধ করলাম আমি এই দুরুদ গুলি লিখে নিয়ে যাব আপনি যদি আবার একটু বলতেন তারপর সেই মূল্যবান দুরুদ আমি লিখে নিলাম ততক্ষণে মেয়রের রুমে যাওয়ার জন্য তার ডাক চলে আসলো তখন যাওয়ার বেলায় বললো তোমার সাথে কথা বলে ভালো লাগলো,আমি তখন তাকে রিকোয়েস্ট করলাম চাচা যদি একদিন সময় দেন আমি আপনার সাথে আরোও গল্প করবো কারন আপনার সাথে যত কথা বলবো ততই আমি কিছু শিখতে পারবো।উনি অত্যান্ত আনন্দের সাথে বললেন অবশ্যই আসবা।

তারপর আর এই গুনি মানুষটির সাথে কখনো কথা বলা হয়ে উঠেনি।কিন্তু যেই ১১ টি মূল্যবান দুরুদ তিনি আমাকে শিখিয়ে দিয়ে গেছে তা আমার জিবনের চলার পথে অপরিহার্য হয়ে থাকবে।আমাদের দূর্ভাগ্য এমন একজন গুনী জ্ঞানী মুরুব্বীকে হারালাম।আল্লাহপাকের কাছে দোয়া রইলো আল্লাহপাক যেনো তার কবরকে জান্নাতের বাগান করে দেন। আর তার পরিবারকে যেনো তাকে হারানোর শোক সইবার ক্ষমতাদেন।

মিথ্যা মামলায় ফেরারী হয়ে আমি ঢাকাতে অবস্হান করছি নয়ত অবশ্যই একটি বারের জন্য তাকে শেষ দেখাটা দেখতে আসতাম।আফসোস থাকবে সারাজিবন এমন একজন মানুষকে আমি শেষ বারের মত দেখতে পারলামনা।